পন্যের নাম: কাদাকনাথ

পন্য ক্রমিক নং: ৬৭

বিস্তারিত: কাদাকনাথ মুরগি:

কাদাকনাথ মুরগি ভারতীয়ান ব্রিড। ভারতের মধ্যপ্রদেশের পূর্বাঞ্চলীয় জেলা ঝাবুয়া এবং ধার এ জাতের মুরগির আদি নিবাস। সেখানে এ জাতের মুরগিকে আঞ্চলিক ভাষায় ‘কালি মাসি বলে।

কাদাকনাথ মুরগির মাংসে উচ্চ মাত্রায় প্রোটিন, যৎসমান্য পরিমাণে ফ্যাট ও ক্লোস্টেরল থাকে। যার ফলে মানুষের কাছে কাদাকনাথ মুরগির মাংসের চাহিদা অনেক বেশি।

কাদাকনাথ মুরগির বৈজ্ঞানিক নাম: গ্যালাস গ্যালাস ডোমেস্টিকাস

কাদাকনাথ মুরগি বছরে ১২০ থেকে ১৩০ টি ডিম দেয়। এর দৈহিক ওজন ১.৫ কেজি/ ১২০ থেকে ১৩০ দিনে। কাদাকনাথ মুরগির মাংস,হাড়, নার্ভ ,ডিম,এমনকি নাড়িভুঁড়িও কালো হয়ে থাকে।

কাদাকনাথ কি?

কাদাকনাথ হলো ভারতের ‘ব্ল্যাক মিট চিক।সহজে বলা হয়। ভারতের মধ্যপ্রদেশের পূর্বাঞ্চলীয় জেলা ঝাবুয়ার উপজাতি সম্প্রদায়ের লোকজন সাধারণত কাদাকনাথ মুরগি পালন করে থাকে। মেডিসিনাল গুণ থাকায় কাদাকনাথ মুরগি ভারতের গণ্ডি পেরিয়ে বর্তমানে বাংলাদেশ সহ অনেক দেশে এ জাতের মুরগি পালন করা শুরু হয়েছে।

কাদাকনাথ মুরগির বৈশিষ্ট্য:

১। একদিন বয়সের বাচ্চার পিঠে নীলাভ থেকে কালোর সাথে অসম শ্যাম মিশ্রিত ডোরাকাটা দাগ থাকে।
২। পূর্ণ বয়স্ক কাদাকনাথ মুরগির পালকের রঙের তারতম্য হতে পারে এবং রূপালী ও সোনালী রঙের চুমকি বসানো থেকে নীলাভ কালচে রঙ যা চুমকি বসানো ছাড় হতে পারে।
৩। কাদাকনাথ মুরগির চামড়া,ঠোঁট,স্যান্ক , নখ , এবং পায়ের তালু দেখতে স্লোট রঙের মতো ।ঝুটি ওয়াটল ও জিহ্বা রক্ত বর্ণের (দেহের ভিতরের অধিকাংশ অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ দেখতে তীব্র কালো রঙের বিশেষ করে ট্রাকিয়া থোরাসিক ও এবডোমিনাল এয়ার স্যাক ,গোনাড , হৃদপিণ্ডের বেস ও মেসেন্টারি
৪। সাধারণ পাখি থেকে কাদাকনাথ মুরগির মাংসে প্রোটিনের পরিমাণ বেশি। কাদাকনাথ মুরগির মাংসে প্রোটিনের পরিমাণ ২৫ % ।যা সাধারণ পাখিতে থাকে ১৮ থেকে ২০% ।

দর: প্রতি কেজি ১৫০০

ষ্টক: চাহিদা সম্মত

পন্য সংযুক্তির তারিখ: ২৩ নভেম্বর ২০১৯

পণ্যের ধরণ: হাঁস/মুরগী/কবুতর

পন্য প্রাপ্তির স্থান: Sherpur




আরো কিছু পন্য